খেলার খবর

সালাউদ্দিন আবার নির্বাচন করবে তাই ফুটবল প্রেমীদের বিক্ষোভ

টানা ১২ বছর সভাপতি থাকার পরও, কাজী সালাউদ্দিন পুনরায় নির্বাচনে অংশ নেয়ায় দেশের ফুটবলের ভবিষ্যৎ নিয়ে শঙ্কিত সমর্থকরা। সালাউদ্দিন ও তার প্যানেল নির্বাচনে দাঁড়ানোর প্রতিবাদ ও পদত্যাগের দাবিতে রাজধানীর প্রেসক্লাবে মানববন্ধন করেছে ফুটবল সমর্থকরা। এ সময় র‌্যাংকিংয়ে চরম অবনতি , দুর্নীতি আর বেহাল দশার কারণে পিছিয়ে পড়া ফুটবলকে এগিয়ে নিতে পরিবর্তন চান সাবেকরাও।

বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের তিনবারের সভাপতি কাজী সালাউদ্দিন পুনরায় সভাপতি পদে প্রার্থী হয়েছেন। এ পদে তিনি জয়ী হবেন কিনা তা সময় বলে দিবে। তবে এই মুহূর্তে ফুটবলের স্বার্থে ফেডারেশনের সভাপতির পদের পরিবর্তন চান সমর্থকরা।
সালাউদ্দিনের আমলের সমালোচনা নিয়ে এরইমধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ঝড় উঠেছে।

১২ বছরের দুর্নীতি আর ব্যর্থতার দায়ে সালাউদ্দিন ও তার প্যানেল নির্বাচনে দাঁড়ানো এবং পদত্যাগের দাবিতে মানববন্ধন করেছে ফুটবল সমর্থকরা। তাদের সঙ্গে একই সুর মিলিয়ে যোগ দেন সাবেক ফুটবলাররও। বছরের পর বছর বেহাল দশার সঙ্গে দৃশ্যমান উন্নতি না থাকায় দেশের ফুটবল নিয়ে শঙ্কিত সমর্থকরা।

এক আন্দোলনকারী বলেন, ‘আমরা সাফ-এ কম্পিটিশন করতে পারি না। ভুটানের সাথি। তিন বছর ফুটবলের বাইরে থাকি। এরকম একজন অদক্ষ, অযোগ্য সংগঠককে কীভাবে মানব? আমরা বাংলাদেশ ফুটবলের উন্নতি চাই। এখানে যদি কাজী সালাউদ্দিন ছাড়াও অন্য কেউ থাকত, আমরা তারও পদত্যাগ চাইতাম বিরোধিতা করতাম শুধুমাত্র ফুটবলের স্বার্থে।

হাইকোর্টের আইনজীবী সৈয়দ সাইয়েদুল হক সুমন বলেন, ‘এমনভাবে সিন্ডিকেট হইছে, গণতান্ত্রিক উপায়ে যদি ভোটও দেন, আপনি ভোটেও এদেরকে পরাজিত করতে পারবেন না। এরা তো অলরেডি কোটি কোটি টাকা বানাই ফেলছে। এরা যাদেরকে কাউন্সিলর বানাইসে এরাও তাদের কেনা প্রডাক্ট।

ফুটবলের হারানো ঐতিহ্য ফেরাতে পরিবর্তন চান সাবেকরাও। ২০১৬ সালে তৃতীয় দফায় নির্বাচিত হওয়ার পর নানা প্রতিশ্রুতি দেন সালাউদ্দিন। কিন্তু কথার সঙ্গে কাজের মিল খুঁজে পাওয়া যায়নি। কাজী সালাউদ্দিনের প্যানেল মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে দৃষ্টান্ত স্থাপন করবেন, এমনটা চাওয়া সাবেক ফুটবলার কায়সার হামিদের।

হামিদ বলেন, ‘যারা ভাল লোককে আসতেই দিচ্ছে না। যেকোনভাবে চক্রান্ত করে ভাল মানুষদের সরিয়ে ফেলা হচ্ছে। দেখা যাচ্ছে একি লোক ঘুরে ফিরে এখানে আসছে। তারা চেয়ারকে ভালবাসেন, ফুটবলকে ভালবাসেন না।

Show More

Related Articles

Back to top button
Close
Close