বাংলাদেশ

স্থলবন্দর দিয়ে আন্তর্জাতিক বাণিজ্য শুরু।

সুহেলি রিপা, নিজস্ব প্রতিনিধি; করোনা ভাইরাসের কারণে বিগত আড়াই মাস থেকে বর্হিবিশ্বের সাথে সমপূর্ণ ব্যবসা বাণিজ্যক লেনদেন স্থগিত করা হয়েছিল। অবশেষে আবার স্থলবন্দর দিয়ে আন্তর্জাতিক বাণিজ্য পূনরায় চালু হলো। কিন্তু করোনার সংক্রমণ নিয়ে যেহেতু অনেক শঙ্কা রয়েছে, তাই সীমান্ত পারাপারের পূর্বে ড্রাইভারদের শারীরিক অবস্থা পরীক্ষা করা হবে এবং ট্রাকগুলোকে সেনিটাইজ করা হবে। ২৫০ মিটারের বেশি বাংলাদেশের ভেতরে কোনো ট্রাক যাবে না এবং ফেরার সময়ও ড্রাইভারদের শারীরিক অবস্থা পরীক্ষা করা হবে।

পুুুুরো ৭০দিন পর গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মালদা জেলার মহদিপুর সীমান্ত দিয়ে ৮৬টি পণ্যবাহী ট্রাক বাংলাদেশের চাঁপাইনবাবগঞ্জে প্রবেশ করে সোনামসজিদ স্থলবন্দর দিয়ে।

যদিও ভারত সরকার এপ্রিল মাসের ২৪ তারিখে স্থলবন্দর দিয়ে আন্তর্জাতিক বাণিজ্য পূনরায় শুরু করার অনুমতি দিয়েছেন, কিন্তু পশ্চিমবঙ্গ সরকারের কাছ থেকে অনুরূপ অনুমতি না পাওয়ার কারণে রপ্তানীকারকরা বাংলাদেশে কোনো সামগ্রী পাঠাতে পারেনি। ভারত সরকার বারবার চিঠি দিয়ে পশ্চিমবঙ্গ সরকারকে স্থলবন্দর দিয়ে আন্তর্জাতিক বাণিজ্য শুরু করতে অনুমতি দেওয়ার কথা বললেও মমতা ব্যানার্জি অনড় ছিলেন তার সিদ্ধান্তে।

মহদিপুরের এক ব্যবসায়ী জানান, বেশ কিছু বণিক সভাও পশ্চিমবঙ্গ সরকারকে অনুরোধ করেছিলেন এবং জানিয়েছিলেন স্থলবন্দর দিয়ে আন্তর্জাতিক বাণিজ্য না হওয়ার কারণে দুই দেশের ব্যবসায়ীরা অনেক ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছেন।
পশ্চিমবঙ্গের ৬টি স্থলবন্দর-মহদিপুর, চ্যাংড়াবান্ধা, ফুলবাড়ী, হিলি, ঘোজাডাঙ্গা এবং পেট্রাপোল-দিয়ে দুই দেশের মধ্যে প্রতিবছর প্রায় ৩০ হাজার কোটি ইন্ডিয়ান রুপি ব্যবসা হয়।
বাংলাদেশের আমদানিকারক সংস্থাগুলো থেকে আমাদের বারবার বলছিলেন রপ্তানি শুরু করতে। অনেক অপেক্ষা করার পরে আমরা সিদ্ধান্ত নেই বাংলাদেশে সামগ্রী পাঠাবো, কারণ ভারত সরকারের অনুমোদন রয়েছে। আর কাস্টমস এবং বিএসএফ আমাদের সহযোগীতার আশ্বাস দিলেন, তাই আমরা রাজ্য সরকারের অনুমতির অপেক্ষা না করেই ট্রাক পাঠানো শুরু করলাম।

আরও জানা যায় যে, মহদিপুরের ব্যবসায়ীদের থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে অন্যান্য স্থলবন্দর দিয়েও এবার আন্তর্জাতিক বাণিজ্য পূনরায় চালু হবে।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close