মুক্তমঞ্চ

সাম্রাজ্যবাদী চীন কিভাবে আগামীর সুপার পাওয়ার (পর্ব ২)

সজীব কান্তি দাশ: কখনো ভেবে দেখেছেন বিশ্বে সব জায়গাতেই চায়নিজ প্রোডাক্ট এতো সহজলভ্য কেনো? কিংবা এতো সস্তা দামেই কেনো তাঁদের প্রোডাক্ট পাওয়া যায়? মূলত আজ আলোচনা করবো চায়নিজ অর্থনীতির দ্বিতীয় স্তম্ভ কিংবা অন্যতম সেরা কৌশল Dumping Strategy নিয়ে।

Dumping Strategy মূলত হচ্ছে অন্যদেশের প্রোডাক্ট কিংবা প্রতিদ্বন্দ্বী অন্য কোম্পানির প্রোডাক্টকে আউট অব বিজনেস করার কৌশল।Dumping strategy এর মূল বক্তব্য হচ্ছে অন্যদেশে এতোটাই এক্সপোর্ট করো এবং এতোটায় স্বল্প মূল্যে এক্সপোর্ট করো যাতে অন্য দেশের স্থানীয় কোম্পানি গুলো আউট অব বিজনেসে চলে যায় এবং যার ফলে আপনি মনোপলি পেয়ে যাবেন অল্প কিছু দিনেই এবং আপনার বাজার শেয়ার বাড়তে থাকবে দিন কে দিন।এবং একপ্রকার ওই দেশের পুরো বাজারটা আপনিই কন্ট্রোল করবেন।

একজন ক্রেতা তো সবসময় স্বল্প দামের মধ্যেই টেকসই প্রোডাক্টকেই প্রাধান্য দিবে বেশি।এবং এভাবে যদি ২-৩ বছর চলতে থাকে তবে অন্য কোম্পানিগুলো মন্দার ফলে তাঁরা অটোমেটিক ভাবেই বাজার থেকে আউট হয়ে যাবে।ঠিক এভাবেই চায়নিজ কোম্পানি গুলো বাজার অনুপাতে ২-৩ বছর স্বল্প দামেই প্রোডাক্ট এক্সপোর্ট করে মনোপলি পেয়ে যায়।এবং অন্যদের আউট অব বিজনেস করে ফেলে নিজেরাই বাজার নিয়ন্ত্রণ করতে থাকে।

এখন আপনার মনে প্রশ্ন জাগতেই পারে যে’এতো স্বল্প দামেই যদি চায়নিজ কোম্পানি গুলো প্রোডাক্ট এক্সপোর্ট করে থাকে তবে তাঁদের কি আসলেই লাভ হয়?বা লাভ হলেও কি সেসব কোম্পানিগুলোর পোষায়? কিংবা এতো স্বল্প খরচে তাঁরা প্রোডাক্ট তৈরি করে কি করে? যার ফলে ডাম্পিং করবে?

এর সিম্পল উত্তর হচ্ছে চায়নিজ সরকার সেসব কোম্পানিগুলোকে সাহায্য করে আর্থিক এবং সার্বিক ভাবেই।চায়নিজ সরকার সেসব কোম্পানিগুলোকে Export subsidies দিয়ে থাকে।চায়নিজ সরকার ডাম্পিং করার জন্যেই সেসব কোম্পানিগুলোকে টাকা দিয়ে থাকে নিজেদের রাষ্ট্রীয় কোষাগার থেকেই।বা আরো সাবলীল ভাষায় বললে ভুক্তোকি দিয়ে থাকে।চায়নিজ রা সব সময় দীর্ঘকালীন পরিকল্পনা করে থাকে।যার ফলে এই Dumping strategy তাঁদের দীর্ঘ মেয়াদি পরিকল্পনার অংশ।পৃথিবীতে কয়টা দেশ এতো এডভান্স চিন্তা এবং ধৈর্যের পরিচয় দিয়ে নিজেদের পকেট থেকে টাকা কষিয়ে নিজেদের কোম্পানিগুলোকে সাহায্য করে অন্য দেশে ডাম্পিং করতে? ভেবে পাচ্ছেন? ঠিক এই কারণেই বিশ্বে চায়নিজ প্রোডাক্টের জয়জয়কার এবং এতো চাহিদা।এই কারণেই বর্তমান বিশ্বে চায়না এতো এতো এক্সপোর্ট করতে পারছে সাথে অন্য দেশের স্থানীয় কোম্পানি দের আউট অব বিজনেস করে তাঁদের একেবারেই শেষ করে দিচ্ছে এবং চায়নিজদের উপর ডিপেন্ড করতে কৌশলগত বাধ্য করছে।

এইতো গেলো চায়নিজ ইকোনমিক নিয়ে আলোচনা কেনো বিশ্বে চায়নিজ প্রোডাক্টের জয়জয়কার।

পরবর্তী আলোচনা করবো চায়নিজ সাম্রাজ্যবাদ নিয়ে এবং ল্যান্ড মাফিয়া নিয়ে।কারণ বিশ্বের সুপার পাওয়ার হতে গেলে ইকোনমি জোড়ালোর পাশাপাশি অলিখিত সাম্রাজ্যবাদ স্থাপন করা আবশ্যিক।যা যুক্তরাষ্ট্র করছে সেনা ঘাঁটি দিয়ে কিন্তু চায়নিজ রা করছে ইকোনমি দিয়েই।কিভাবে বিশ্বে অলিখিত চায়নিজ সাম্রাজ্যবাদ চলছে কিভাবে এশিয়া আফ্রিকাতে চায়নিজ সাম্রাজ্যবাদ স্থাপন হয়েছে ইতিমধ্যেই।এবং কোন কোন দেশ গুলো চায়নিজদের জন্য বাঁধা হয়ে দাঁড়িয়ে আছে এবং তাঁদের কেও কিভাবে স্ট্রিং অব পলিসির মাধ্যমে মোকাবিলা করছে সে আলোচনা নিয়ে পরবর্তী পর্বে হাজির হবো।

Show More
Back to top button
Close
Close