আন্তর্জাতিক

বৈশ্বিক মহামারী করোনাভাইরাসে বিশ্বে মৃত্যুর সংখ্যা ৪ লাখ ছাড়িয়েছে

নাঈম হোসেন, সিলেট : করোনা ভাইরাসে বিশ্বজুড়ে মৃতের সংখ্যা ৪ লাখের ঘর ছাড়িয়ে গেছে। আক্রান্তের সংখ্যা ৭০ লাখ ছুঁই ছুঁই। নতুন করে গত ২৪ ঘন্টায় ভাইরাসটিতে মারা গেছেন ৪ হাজার ২৫৩ জন। সংক্রমিত হয়েছেন ১ লাখ ২৮ হাজার মানুষ।

গত বছর ডিসেম্বরে চীনের উহানে সর্বপ্রথম শনাক্ত করা হয় প্রাণঘাতি ভাইরাস কোভিড নাইন্টিন। প্রথমদিকে চীনে ভাইরাসটি প্রকোপ শুরু করে। তবে লকডাউন, বেশি বেশি পরিক্ষা সহ কড়াকড়ি নির্দেশনা দিয়ে মার্চের শেষদিক থেকে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে চীন। চীনের পার্শ্ববর্তী দেশ দক্ষিণ কোরিয়া, জাপান, ভিয়েতনাম সহ বেশকয়েকটি দেশ করোনাভাইরাস পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ আনে কৌশলে। এছাড়া ওশেনিয়া অঞ্চলের দেশ অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ডও সাফল্য দেখিয়েছে। করোনাভাইরাসের প্রকোপ তুলনামূলক কম দেখেছে দারিদ্র কবলিত আফ্রিকা মহাদেশ।


যদিও অদৃশ্য এই ভাইরাসের সবচেয়ে ভয়াবহ রূপ দেখে ইউরোপ-আমেরিকার দেশগুলো। ইতালিতে ব্যাপক হারে তান্ডব চালায় করোনা ভাইরাস। রীতিমতো হিমশিম খেয়েছিল দেশটি। করোনাভাইরাসে এখন পর্যন্ত ইতালিতে মারা গেছেন ৩৩ হাজার ৮৪৬ জন। আক্রান্ত হয়েছেন ২ লাখ ৩৪ হাজার মানুষ। ফ্রান্সে মহামারী নভেল করোনাভাইরাসে মারা গেছেন ২৯ হাজারের বেশি মানুষ। আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ ৫৩ হাজার । কোভিড নাইন্টিনে বিপর্যস্ত স্পেনে মৃত্যু হয়েছে ২৭ হাজার ১৩৫ জনের, আক্রান্ত হয়েছেন ২ লাখ ৮৮ হাজার।

তবে ইউরোপের বাকি দেশগুলোর তুলনায় কোভিড নাইন্টিন মোকাবেলায় সাফল্য দেখিয়েছে জার্মানি। ১ লাখ ৮৩ হাজার আক্রান্ত হলেও মৃত্যু হয়েছে ৮ হাজার ৭৬৯ জনের। কঠোর লকডাউন, বেশি বেশি পরিক্ষা সহ কড়াকড়ি করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে জার্মানরা। এরফলে ইউরোপের উন্নত দেশগুলোর মধ্যে আগেই স্বাভাবিক জীবনে ফিরে দেশটি।

বৈশ্বিক মহামারী নভেল করোনাভাইরাসে ইউরোপে সবচেয়ে বেশি মৃত্যু দেখেছে ব্রিটেন। বিশ্বে যুক্তরাষ্ট্রের পর সর্বোচ্চ। আর তাই ভাইরাসের ফলে অন্যতম ক্ষতিগ্রস্ত দেশ ব্রিটেন। এখন পর্যন্ত ব্রিটিশ মুলুকে মারা গেছেন সাড়ে ৪০ হাজার মানুষ, সংক্রমিত হয়েছেন ২ লাখ ৮৪ হাজারের বেশি মানুষ।

আশংকাজনক ভাবে পরিস্থিতি খারাপ হচ্ছে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোতে। ভারত তো এখন শীর্ষ ছয় আক্রান্ত দেশের তালিকার মধ্যে ঢুকে পড়েছে। মৃত্যুর সংখ্যা ৭ হাজার এর কাছাকাছি। পাকিস্তানে ৯৩ হাজার আক্রান্ত, মৃত্যু ১ হাজার ৯৩৫ জনের৷ বাংলাদেশে ৬৫ হাজারের বেশি আক্রান্ত। মৃত্যুর মিছিলও বাড়ছে ক্রমশ

করোনাভাইরাসের এখনকার হটস্পট লাতিন আমেরিকার দেশ ব্রাজিল। দেশটির দুর্বল স্বাস্থ্য ব্যবস্থা ও জনসংখ্যা সাথে প্রেসিডেন্ট জেইরে বলসেনারোর আত্মঘাতী সিদ্ধান্ত মৃত্যুকূপে পরিণত হয়েছে সাম্বা ফুটবলের দেশটি। ব্রাজিলে প্রাণঘাতি ভাইরাসে মারা গেছেন ৩৬ হাজার ৯৫৭ জন। আক্রান্তের সংখ্যা লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে। এরফলে যুক্তরাষ্ট্রের পর ৬ লাখ ৭৩ হাজার আক্রান্ত নিয়ে বিশ্বে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ সংক্রমিত ব্রাজিলে। ধারণা করা হচ্ছে মৃত্যু ও সংক্রমণ বাড়তেই পারে পেলের দেশে।

১ লাখ ১২ হাজার মানুষের মৃত্যু সাথে ১৯ লাখ ৮৮ হাজার আক্রান্ত নিয়ে এখন পর্যন্ত সারা বিশ্বে নভেল করোনাভাইরাসে সবচেয়ে মৃত্যু ও আক্রান্ত হয়েছে বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষমতাধর দেশ যুক্তরাষ্ট্রে। অদৃশ্য ভাইরাস করোনার কাছে বিপর্যস্ত, নাজেহাল দেশটি। প্রথম থেকেই ভাইরাসটিকে “চাইনিজ ভাইরাস” বলে পাত্তাই দিচ্ছিলেন না মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। ফল হিসেবে মহামারীর চূড়ান্ত রূপ দেখেছে দেশটি। করোনাভাইরাস নিয়ন্ত্রণে ডোনাল্ড ট্রাম্পের অবস্থানকে এরজন্য দায়ী করছেন মার্কিনীরা। বেকারত্বের বেড়েছে রেকর্ড হারে। ধস নেমেছে বিশ্বের সবচেয়ে বড় অর্থনীতির দেশটিতে। এরমধ্যে কৃষাঙ্গ যুবক জর্জ ফ্লয়েড পুলিশের হাতে নির্মমভাবে হত্যা হওয়ায় বিক্ষোভের আগুনে পুড়ছে পুরো যুক্তরাষ্ট্র।

তথ্যসূত্র : ওয়ার্ল্ডোমিটার

Tags
Show More

Related Articles

Back to top button
Close
Close