আন্তর্জাতিক

প্রমাণ আছে উহান ল্যাব করোনা ভাইরাস তৈরি করেছে : মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী পম্পেও

অনলাইন ডেস্ক :

সারা বিশ্বে প্রাণহানি কমেছে মৃত্যুর মিছিল।করোনা ভাইরাসে গত ২৪ ঘন্টায় বিশ্বজুড়ে মারা গেছেন ৩ হাজার ৪৮১ জন। এই সময়ে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ৮২ হাজার । গত কয়েক সপ্তাহের ন্যায় সর্বোচ্চ মৃত্যু হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে।এদিকে মহামারীর ভয়াবহ রূপ দেখা ইতালিতে আজ থেকে শিথিল হচ্ছে লকডাউন।

প্রাণঘাতি কোভিড নাইন্টিনের ভয়াল থাবায় পড়া যুক্তরাষ্ট্রে গত ২৪ ঘন্টায় মারা গেছেন ১ হাজার ১১৫ জন। আর নতুন করে আক্রান্ত ২৭ হাজার । এই নিয়ে মার্কিন মুলুকে করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়ালো ১১ লাখ ৮৮ হাজার, মৃত্যুর সংখ্যা ৬৮ হাজার ৫৯৮।

দেশটিতে ভাইরাসটিতে সবচেয়ে বেশি মৃত্যু ও আক্রান্ত হয়েছেন নিউইয়র্ক অঙ্গরাজ্যে। গত ২৪ ঘন্টায় সেখানে মৃত্যু হয়েছে ২৮৮ জন। সংক্রান্তের সংখ্যা সাড়ে ৪ হাজার। এখন পর্যন্ত করোনা ভাইরাসে রাজ্যটিতে মারা গেছেন ২৪ হাজার ৬৪৮ জন। আর আক্রান্তের সংখ্যা ৩ লাখ ২৩ হাজার।

নিউইয়র্কে মৃত্যুর সংখ্যা খুবই দুঃখজনক বলে অভিহিত করে গর্ভনর অ্যান্ডু কুমো বলেছেন, নতুন করে হাসপাতালে ভর্তির সংখ্যা কমেছে। তিনি বলেন, যে মার্চ মাসের মাঝামাঝি থেকে রাজ্যের মোট করোনা ভাইরাসে
হাসপাতালে ভর্তির সংখ্যা প্রথমবারের মতো ১০ হাজারের নিচে নেমে গেছে। তবে সতর্ক করে বলেছেন, এটি দীর্ঘ সময়ের জন্য হ্রাস পায় নি।

এদিকে উহানের ল্যাব থেকে করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে বলে অভিযোগ করে মার্কিন প্রেসিডেন্ট মাইপ পম্পেও বলেছেন যথেষ্ট প্রমাণ আছে তার কাছে।

রবিবার এবিসি নিউজে ‘এবিসি দিস উইকে’ মাইক পম্পেও চীনকে এই মারাত্মক করোনভাইরাস ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য জবাবদিহি দিতে হবে বলে হুশিয়ারী দেন। পম্পে বলেন, উহান শহরের একটি পরীক্ষাগারে ভাইরাসটির তৈরি হয়েছে আর এর বিরাট প্রমাণ রয়েছে। তবে কী প্রমান সে বিষয়ে কিছু বলেননি তিনি।

উহান ইনস্টিটিউট অফ ভাইরোলজি, উচ্চ-সুরক্ষা জৈব-কনটেনমেন্ট সুবিধা এই ধরনের দাবিকে অসম্ভব বলে অভিহিত করেছে।

এদিকে ইউরোপে মহামারী করোনা ভাইরাসে সবচেয়ে বেশি বিপর্যস্ত হওয়ার আশংকায় থাকা ব্রিটেনে কমেছে মৃত্যুর সংখ্যা। নতুন করে মারা গেছেন ৩১৫ জন, নতুন আক্রান্ত সাড়ে ৪ হাজার এর মতো। এই নিয়ে দেশটিতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১ লাখ ৮৬ হাজার। এখন পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ২৮ হাজার ৪৪৬ জনের। যা যুক্তরাষ্ট্র ও ইতালির পর সর্বোচ্চ।

এদিকে ব্রিটেনে ৭ মে পর্যন্ত লকডাউন জারি আছে। তাই লকডাউন বাড়ানো হবে নাকি শিথিল হবে সে বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন কিছু দিকনির্দেশনা দেওয়ার কথা আছে। মন্ত্রীপরিষদ অফিসের মন্ত্রী মাইকেল গভ জানিয়েছেন, প্রধানমন্ত্রী বিস্তৃত পরিকল্পনাটি ব্যাখ্যা করবে যে আমরা কীভাবে আমাদের অর্থনীতিটি চলতে পারি, কীভাবে আমরা আমাদের বাচ্চাদের স্কুলে ফিরিয়ে আনতে পারি, কীভাবে আমরা আরও নিরাপদে কাজ করতে যেতে পারি এবং কীভাবে কর্মক্ষেত্রে জীবনকে আরও নিরাপদ করতে পারি।

প্রাণঘাতি কোভিড নাইন্টিনের ভয়াবহ রূপ দেখা ইতালিতে দুই মাস পর আজ থেকে শিথিল হচ্ছে লকডাউন। শর্ত অনুযায়ী মুদির দোকান, উৎপাদন খাত ও কল-কারখানা সহ বেশ কিছু খাত খোলা হচ্ছে। দেশটিতে করোনা পরিস্থিতি অনেকটা কমে এসেছে। গত ২৪ ঘন্টায় নতুন করে মারা গেছেন ১৭৪ জন। যা লকডাউন করার পর সবচেয়ে কম। এখন পর্যন্ত মোট মারা গেছেন ২৮ হাজার ৮৮৪ জন। আর আক্রান্তের সংখ্যা ২ লাখ ১০ হাজার।

মহামারীতে নাজেহাল হওয়া আরেক দেশ ফ্রান্সে ক্রমশ কমছে মৃত্যু ও সংক্রমণের হার। গত ২৪ ঘন্টায় মারা গেছেন ১৩৫ জন। নতুন আক্রান্ত মাত্র ২৯৭ জন। আর মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১ লাখ ৬৮ হাজার। মারা গেছেন ২৪ হাজার ৮৯৫ জন। এই অবস্থায় দেশটিতে ১১ মে লকডাউন শিথিল হতে যাচ্ছে, তবে স্বাস্থ্য জরুরি অবস্থা জারি থাকবে ২৪ জুলাই পর্যন্ত।

করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় যে কয়েকটি সাফল্য দেখিয়েছে জার্মানি অন্যতম। দেশটিতে আক্রান্তের সংখ্যা ১ লাখ ৬৫ হাজার হলে মৃত্যুর সংখ্যা অনেকটাই কম। এখন পর্যন্ত মারা গেছেন ৬ হাজার ৮৬৬ । নতুন মৃত্যু ৫৪ জন ।

তুরস্কে নতুন করে মারা গেছেন ৬১ জন। এই নিয়ে মোট মৃতের সংখ্যা দাড়িয়েছে ৩ হাজার ৩৯৭ জনে। আর আক্রান্তের সংখ্যা ১ লাখ ২৬ হাজার। রাশিয়ায় নতুন আক্রান্ত ১০ হাজার, মৃত্যু হয়েছে ৫৮ জনের। কানাডায় নতুন মৃত্যু ১০৯ জনের। দেশটিতে দৈনিক মৃত্যু ৫% শতাংশ বেড়ে গিয়েছে।

ওয়ার্ল্ডোমিটারের তথ্য মতে ২১০ টি দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়া মহামারী করোনা ভাইরাসে এখন পর্যন্ত মারা গেছেন ২ লাখ ৪৮ হাজার ৪২৩ জন। আক্রান্তের সংখ্যা ৩৫ লাখ ৭৮ হাজার । আর প্রাণঘাতি ভাইরাস থেকে সুস্থ হয়েছেন ১১ লাখ ৫৮ হাজার মানুষ।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close