ব্রেকিং নিউজবাংলাদেশ

পরিস্থিতি ভয়াবহ রূপ ধারন করছে একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যু

প্রাণঘাতি করোনাভাইরাসের সংক্রমণ দেশে বেড়েই চলেছে। একেই সাথে বাড়ছে মৃতের সংখ্যাও। ফলে ক্রমশ নাজুক হতে চলছে দেশের করোনা পরিস্থিতি। গত কয়েকদিন থেকে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে মৃত্যু ও আক্রান্তের হার। আজও অব্যাহত রয়েছে সেই ধারা। জুনের শুরু থেকে প্রতিদিন গড়ে ২ হাজারের উপরে আক্রান্ত হচ্ছে দেশে। গত কয়েকদিনের সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে মৃতের সংখ্যা।

গত ২৪ ঘন্টায় দেশে মহামারী কোভিড নাইন্টিনে প্রাণ হারিয়েছেন আরো ৪৫ জন। যা একদিনে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ মৃত্যুর রেকর্ড। মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়ালো ৯৭৫ জনে। শনাক্ত বিবেচনা মৃত্যুর হার ১.৩৬ শতাংশ।

তবে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। গত ২৪ ঘন্টায় নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ৩ হাজার ১৭১ জন। এই নিয়ে ভাইরাসটিতে সংক্রমিত সংখ্যা ৭১ হাজার ৬৭৫ জন। শনাক্তের হার ২১.৬২ শতাংশ৷

নতুন করে সুস্থ হয়েছেন ৭৭৭ জন। মোট সুস্থের সংখ্যা ১৫ হাজার ৩৩৬ জন। শনাক্ত বিবেচনা সুস্থতার হার ২১.৪০ শতাংশ।

করোনা ভাইরাস নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এর নিয়মিত অনলাইন সংবাদ সম্মেলনে গত ২৪ ঘন্টায় দেশে করোনার সর্বশেষ তথ্য জানান স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক ড. নাসিমা সুলতানা।

এসময় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এর অতিরিক্ত মহাপরিচালক ড. নাসিমা সুলতানা জানান, সারাদেশে ৫৫ টি ল্যাবে নমুনা পরিক্ষা করা হয়েছে ১৪ হাজার ৬৬৪ টি। এ পর্যন্ত নমুনা পরিক্ষা করা হয়েছে ৪ লাখ ২৫ হাজারের বেশি।

মৃত্যুর বিশ্লেষণে বলা হয়, মৃত ৪৫ জনের মাঝে ৩৩ জন পুরুষ ও ১২ জন নারী৷

ঢাকা বিভাগে মারা গেছেন ২৮ জন, চট্টগ্রাম বিভাগে ১১ জন, সিলেট বিভাগে ২ জন, রাজশাহীতে ২ জন ও রংপুর বিভাগে ২ জন।

গত ৮ মার্চ প্রথম করোনা ভাইরাস শনাক্ত করা হয়। ১৮ মার্চ প্রথম মৃত্যু দেখে বাংলাদেশ। এরপরে ক্রমশ বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। সরকার ঘোষিত সাধারণ ছুটি বাড়ানো হয় নি। সীমিত পরিসরে চলাচল করবে গণপরিবহন। কঠোর স্বাস্থ্যবিধি মেনে খোলা হচ্ছে অফিস-আদালত। অভ্যন্তরীন রুটে বিমান চলাচলও শুরু হবে। যদিও ১৫ জুন বন্ধ থাকছে দেশের সব ধরণের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।





Tags
Show More

Related Articles

Back to top button
Close
Close