বাংলাদেশ

পদ্মা সেতুতে বসেছে ৩০তম স্প্যান, ৪৫০০ মিটার দৃশ্যমান ।

সুহেলি রিপা,নিজস্ব প্রতিনিধি: পদ্মা সেতুর ৩০তম স্প্যান বসানো সম্পন্ন হয়েছে এই করোনা মহামারী এবং প্রাকৃতিক দুর্যোগের ঘনঘটা সময়ের মধ্যে দিয়ে।
৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যর সেতুটি দ্বিতলবিশিষ্ট হবে, এর ওপর দিয়ে সড়কপথে সাধারণ যানবাহন ও নিচের অংশ দিয়ে রেলপথে রেলগাড়ি চলাচলের সু ব্যবস্থা থাকবে। ২০১৪ সালের ডিসেম্বরে মূলত সেতু নির্মাণ কাজ শুরু হয়। ২০২১ সালে মাঝামাঝিতে সেতুর নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হওয়ার আশা রয়েছে । সেতু নির্মাণের কাজে চীনের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চায়না মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানি দায়িত্বরত আছে । আর নদীশাসনের কাজ করছে চীনের সিনো হাইড্রো কর্পোরেশন।

পদ্মা সেতুর নির্বাহী প্রকৌশলী দেওয়ান মো. আব্দুল কাদের জানান যে, পদ্মা সেতুর জাজিরা প্রান্তের ২৬ ও ২৭ নম্বর খুঁটর ওপর ‘৫বি’ নম্বর স্প্যানটি বসানো হয়েছে শনিবার সকালে।
শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি ফেরি রুটের চ্যানেলে পদ্মা সেতুর ২৬ ও ২৭ নম্বর খুঁটি এলাকায় ড্রেজিং করে পাশ দিয়ে চ্যানেল করে দিয়ে খুঁটি দুটি তৈরি করা হয়। সে কারণেই এই দুটি খুঁটি নির্মাণে বিলম্ব হয়েছে।”

সেতুর ৩১ তম স্প্যান বসনোর সিডিউল ঘোষণা করা হয়েছে আগামী ২০ জুন ; ৩১তম স্প্যানটি বসবে ২৫ ও ২৬ নম্বর খুঁটিতে। এবং ৩০ ও ৩১ তম স্প্যান স্থাপনের মধ্য দিয়েই সেতু সরাসরি জাজিরা প্রান্ত থেকে মাওয়ার অংশ স্পর্শ করবে।

প্রকৌশলী আরও বলেন, “৩১ তম স্প্যান বসানো সম্পন্ন হলেই জাজিরার অংশে স্প্যান বসানোর কাজ শেষ । আর বাকি থাকছে মাওয়া অংশে স্প্যান বসানো। এই ১০টি স্প্যান বসানো সম্পন্ন হলে সেতুর পূর্ণ অংশ ৬.১৫ কিলোমিটার দৃশ্যমান হবে।” 

পদ্মাসেতু বিভাগের উপ-সহকারী প্রকৌশলী হুমায়ুন কবীর জানান, পদ্মাসেতুর ৩০ তম স্প্যান বসানোর মধ্য দিয়ে ৪ হাজার ৫০০ মিটার দৃশ্যমান হয়েছে। এখন বাকি রইলো ১১টি স্প্যান বা দেড় কিলোমিটারের একটু বেশি। স্বাস্থ্যবিধি মেনেই করোনার মধ্যে দিয়ে পদ্মাসেতুর কাজ এগিয়ে চলছে।

তিনি বলেন, “করোনাভাইরাসের কারণে পদ্মাসেতুর কাজে তেমন কোন অসুবিধা হয়নি। করোনাভাইরাস পরিস্থিতির কারণে পুরো প্রকল্পটি আইসোলেটেড রাখা হয়েছে। তাই এখানকার দেশী বিদেশী কর্মীরা অনেকটা নিরাপদ। এখানে নিরাপদ দুরত্বে অবস্থান করে কাজ করতে সমস্যা হচ্ছে না। বাইরের কাউকেই এখানে প্রবেশ করতে দেওয়া হচ্ছে না।”


পদ্মাসেতুর কাজ দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলছে দেখে পদ্মা পাড়ের মানুষেরা বেশ খুশি।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
Close